মহানবী (সা:) কে নিয়ে কটূক্তি করায় ফ্রান্সের জার্সিতে আর খেলবেন না পগবা!

108

ডেস্ক রিপোর্ট

ফ্রান্সের জাতীয় দলের তরুণ ফুটবলার পল পগবা।
২০১৩ সালে মাত্র ২০ বছর বয়সে ফরাসি দলে অভিষেক ঘটে পগবার। জাতীয় দলের হয়ে ৭২ ম্যাচে ১০ গোল করেছেন। এছাড়া ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে ক্লাব ফুটবলে খেলেন ২৭ বছর বয়সী এই ফুটবলার।
ফ্রান্সের জার্সিতে আর খেলবেন না পগবা!
২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে ফুটবল বিশ্ব চিনেছে তাকে। বিশ্বকাপের সে আসরে ফ্রান্সকে শিরোপা জেতাতে যার ভূমিকা ছিল অনবদ্য। কাতার বিশ্বকাপ ঘিরেও ফরাসি ফুটবল দল স্বপ্ন বুনছে তাকে নিয়ে। কিন্তু তার আগেই দেখা দিয়েছে সংশয়। হঠাৎ করেই ফ্রান্স জাতীয় দলের হয়ে না খেলার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সানের বরাতে এমন খবরই মিলেছে। তবে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্রেঞ্চ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন কিংবা পগবা এখনো কিছু জানাননি।
কিন্তু হুট করে কেন এমন সিদ্ধান্ত? কেনইবা সম্ভাবনাময় এ ফুটবলার ফ্রান্স থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করার এমন সিদ্ধান্ত নিলেন?

কারণ একটাই। ফ্রান্স সরকারের ইসলামবিদ্বেষী মন্তব্য। ফ্রান্স সরকারের সাম্প্রতিক ইসলামবিদ্বেষী মনোভাবের কারণেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পগবা। হযরত মুহাম্মদ (সা.)কে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশের পর তিনি মনঃক্ষুণ্ণ হয়েই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে ধারণা করছে সংবাদ মাধ্যমটি।
ফরাসি শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাতি প্রথমে মহানবী (সা.)কে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশ করার মধ্য দিয়ে ঘটনার শুরু হয়। এর পরে এ ঘটনায় জন্য নিজ ছাত্রের হাতে প্রাণ হারাতে হয় স্যামুয়েলকে। এরপরই ফ্রান্স প্রধানমন্ত্রী ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ইসলামকে সন্ত্রাসবাদের ধর্ম বলে আখ্যায়িত করেন। এমনকি এ ঘটনার পর রাষ্ট্রীয় মদদে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন আঁকা নিয়ে ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন তিনি।
এরপর মসজিদ বন্ধ, বিভিন্ন ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ারও ঘটনা ঘটে। চলে ধরপাকড়। এছাড়া প্রকাশ্য জনসভায় মহানবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ জারি রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।
দেশটির সরকারের এমন মন্তব্য ও কর্মকাণ্ডে অপমানিত বোধ করেছেন পগবা। ব্যক্তিগত, মুসলিম বিশ্ব এবং ইসলাম ধর্মের জন্য অপমানজনক এমন ঘটনায় তাই ফ্রান্স জাতীয় দল থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।