লৌহজং থানার এসআই আবু তাহেরের বিরুদ্ধে আদালতে চাঁদাবাজির মামলা

147

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

মুন্সীগঞ্জে চাঁদা চেয়ে যুবককে চোখ মুখ বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগে পুলিশের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। লৌহজং থানার সাব ইন্সপেক্টর আবু তাহের মিয়ার বিরুদ্ধে এ মামলাটি করেন লৌহজং উপজেলার কুমার ভোগ পুর্নবাসন কেন্দ্র এলাকার মৃত- সাহেদ শেখ এর ছেলে রিপন শেখ। মঙ্গলবার মো. রিপন শেখ বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা করলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত-৬ এর বিচারক আব্দুল্লাহ আল ইউসুফ মামলাটি আমলে গ্রহন করে এফআইআর হিসেবে গন্য করার জন্য লৌহজং থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর প্রেরন করেন।
মামলার সুত্রে জানা গেছে, রিপন এর স্ত্রী রুবি আক্তারের সাথে বনিবনা না হওয়ায় রুবি আক্তারের ভাই ও বোন মিলে গত ৪ সেপ্টেম্বর সকালের দিকে রিপন শেখের বাড়িতে এসে তাকে মাইরপিট করে। পরে একই তারিখে অভিযুক্ত এসআই আবু তাহের মিয়া সিভিল পোশাকে রিপনের বাড়ি থেকে জোর করে তাকে ধরে থানায় নিয়ে আসে। পরে চোখমুখ বেধে তাকে মারধর করে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। রিপন চাঁদা দিতে অ¯ী^কার করলে এস আই আবু তাহের শেখ তাকে মারধর করে থানা থেকে বের করে দেন। পরে সে চিকিৎসা নিয়ে মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জ আদালতে এসে এসআই আবু তাহের ও রিপনের স্ত্রীসহ ৫জনকে আসামী করে মামলা করে।
এসময় আদালত মামলাটি গ্রহন করে এফআইআর হিসেবে গন্য করার জন্য লৌহজং থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর প্রেরন করেন।
এব্যাপারে রিপন শেখ বলেন,আমার স্ত্রীর সাথে বনিবনা না হওয়ায় আমার স্ত্রী রুবি আক্তার এসআই আবু তাহের সহ তার ভাই বোনদের নিয়ে আমার বাড়িতে এসে আমাকে মারধর করে। পরে এসআই আবু তাহের সিভিল পোশাকে এসে আমাকে জোর করে ধরে থানায় নিয়ে চোখমুখ বেধে আমাকে বেত্রাঘাত করে। এসময় আমার নিকট ৫ হাজার টাকা চাঁদাদাবী করে। আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে এস আই আবু তাহের আমাকে মাইরপিট করে থানা থেকে বের করে দেয়। আর বলে তোর স্ত্রীকে বাড়ি লিখে না দিলে তোকে জানে মেরে ফেলবো।
এব্যাপারে মামলার বাদী রিপন শেখের আইনজীবী এডভোকেট রোজিনা ইয়াসমিন বলেন,রিপন শেখের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত মামলাটি এফআই আর হিসেবে গন্য করার জন্য লৌহজং থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপরে শ্রীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত আমাদের হাতে আদালত হতে মামলার কোন কাগজ বা পত্র এসে পৌছেনি।