সিরাজদিখানে রাস্তা হতে ৩টি অবৈধ ও ঝুকিপূর্ণ ড্রেজার পাইপ অপসারণ

আরিফ হোসেন হারিছ, সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ)
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ২টি ইউনিয়নের প্রধান সড়ক থেকে ৩টি অবৈধ ড্রেজারের পাইপ লাইন অপসারণ করেছে প্রশাসন। রোববার বিকেলে লতব্দী ইউনিয়নের ২টি স্থান ও ইছাপুরা ইউনিয়নের একটি স্থান হতে ঝুকিপূর্ণ এ পাইপ লাইন অপসারণ করা হয়।
অবৈধভাবে এসকল ড্রেজারের পাইপ দীর্ঘদিন ধরে প্রধান সড়কের উপর টানার কারণে পথচারীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছিল। পাইপের উপর দেয়া স্পিডব্রেকারের কারণে হরহামাশায় যানবাহনের ক্ষতি সাধন হচ্ছিল। অনেক সময় রাস্তার উপরের এ সকল পাইপের কারণে দ্রুত গতির যানবাহনগুলো হঠাৎ করে ব্রেক করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় পড়ছিল বিভিন্ন যানবাহন। এসকল বিষয়গুলো প্রশাসনের নজরে আসলে রবিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও মো. শরীফুল আলম তানভীরের নেতৃত্বে লতব্দী ইউনিয়নের ২টি স্থানে রাস্তার উপর হতে এ পাইপ লাইন অপসারণ করা হয়। এসময় সাথে ছিলেন সিরাজদিখান থানা অফিসার ইনচার্জ একেএম মিজানুল হক, লতব্দী ইউপি চেয়ারম্যান হাফেজ মো.ফজলুল হক, লতব্দী ইউনিয়ন বিট অফিসার এসআই মো. কাদির শাহ সহ আরো অনেকে। একই কারণে ইছাপুরা ইউনিয়নের টেংগুরিয়াপাড়া এলাকায় ১টি অবৈধ ড্রজার পাইপ লাইন অপসারণ করেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) তাসনিম আক্তার। প্রধান সড়কের উপর অবৈধভাবে টানা ড্রেজার পাইপ লাইন গুলো অপসারণ করায় পথচারী ও এলাকাবাসী উপজেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানায়।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শরীফুল আলম তানভীর জানান, জনগণের চলাচলের রাস্তা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে কিছু লোক অবৈধ ভাবে ড্রেজার ব্যবসা চালাচ্ছেন। তাদের জন্য মাঝে মধ্যে দুর্ঘটনাও ঘটে। এ বিষয়ে আমরা মাসিক আইন-শৃঙ্খলা সভায় আলাপ-আলোচনা করেছি। আমি লতব্দী ইউনিয়নের কয়েকটি স্থান হতে এসকল অবৈধ ও ঝুকিপূর্ণ ড্রেজারের পাইপ লাইন অপসারণ করেছি। এ ছাড়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইছাপুরা ইউনিয়নের একটি জায়গায় হতে ঝুকিপূর্ণ ও অবৈধ এ পাইপ লাইন অপসারণ করে। আমাদের এ অভিযান ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে। যারা এ ধরণের অবৈধ ব্যবসা করছেন তাদেরক জনগরের ভোগান্তি না করতে ও অবৈধ ব্যবসা থেকে বিরত থাকার আহবান জানান তিনি।